আয়না দেখার সময় মানুষ  যে ৫টি জিনিস চিন্তা করে

0
407

আমরা আয়নার সামনে মানুষের আচরণের পিছনে মনস্তাত্ত্বিক কারণগুলি খুঁজে বের করার চেষ্টা করবো। মানুষের আচরণের উপর আয়নার প্রভাব এবং কীভাবে আয়নাকে থেরাপিউটিক টুল হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে তা নিয়েও আলোচনা করবো। মনস্তাত্ত্বিক গবেষণায় দেখা গেছে যে লোকেরা সাধারণত একটি নির্দিষ্ট ভাবে আচরণ করে বেশি যখন তারা নিজেকে অন্য ব্যক্তির দৃষ্টিকোণ থেকে দেখে। অন্য কথায়, লোকেদের পক্ষে সামাজিকভাবে উপযুক্ত আচরণ করা সহজ হয় যখন তারা একা থাকে না বরং দর্শকদের সাথে থাকে। এই ঘটনাটি সামাজিক সুবিধা হিসাবে পরিচিত।

কিভাবে মিরর গেজিং কাজ করে এবং এর পিছনে মনোবিজ্ঞান কি বলে

মিরর গেজিং হল আত্ম-সচেতনতার একটি রূপ যা একজন নিজেকে আলাদা ভাবে দেখতে পায়। এটি আত্ম-প্রতিফলন এবং আত্ম-আবিষ্কারের জন্যও ব্যবহার করা যেতে পারে। আয়না হল সবচেয়ে সাধারণ বস্তু যা লোকেরা প্রতিদিন দেখে, তবে এটি এমন একটি জিনিস যাতে আমরা সবচেয়ে কম মনোযোগ দিই। আপনি যখন আয়নার দিকে তাকান, আপনি কেবল নিজের দিকে তাকাচ্ছেন না, আপনি আপনার চারপাশের দিকেও তাকাচ্ছেন।

আয়নার দিকে তাকানো আপনার আবেগ এবং তার সাথে থাকা প্রতিক্রিয়াগুলির মুখোমুখি হওয়া সম্ভব করে তোলে। এটি আপনাকে প্রশংসা, সমবেদনা এবং ভালবাসার সাথে স্ব-বিচারের মোকাবিলা করতে শিখতেও সাহায্য করে।

১. “আমি খুব ক্লান্ত”

সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে যে আয়নায় নিজেকে দেখার ফলে ক্লান্তি এবং অবসাদ অনুভব হতে পারে। কারণ আমরা আয়নায় যা দেখি তার সাথে নিজেদের তুলনা করা মানুষের স্বভাব। লোকেরা যখন নিজেকে ক্লান্ত দেখে, তখন তারা সেরকম অনুভব করার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

২. “আমাকে কাজ করতে হবে”

যারা আয়নায় তাদের প্রতিচ্ছবি দেখছেন তারা তাদের দেখতে কেমন এবং তাদের ফিটনেসের মধ্যে একটি মানসিক যোগসূত্র তৈরি করার সম্ভাবনা বেশি। আপনি যখন আয়নায় আপনার প্রতিচ্ছবি দেখেন, তখন আপনি নিজেকে সেই দৃষ্টিকোণ থেকে দেখেন, যে দৃষ্টিকোণ থেকে লোকেরা আপনাকে প্রতিদিন দেখে। এটি প্রায়শই ঘটে যখন আমরা লক্ষ্য করি যে আমাদের জিন্স একটু টাইট বা কীভাবে আমাদের মুখ আগের মতো প্রাণবন্ত নাও হতে পারে।

৩. “আমার স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া উচিত”

গবেষকরা বলেছেন যে আয়নায় আপনার প্রতিফলন দেখে আপনি পরবর্তী সময়ে কী করবেন না তা ভাবতে পারেন। জার্নাল অফ এক্সপেরিমেন্টাল সাইকোলজি: হিউম্যান পারসেপশন অ্যান্ড পারফরম্যান্সে প্রকাশিত একটি গবেষণায়, গবেষকরা দেখেছেন যে যারা তাদের প্রতিফলন দেখেন তাদের তুলনায় যারা দেখেন না তাদের চেয়ে “উন্নতির লক্ষ্য” বিকাশের সম্ভাবনা বেশি।

৪. “কেন আমি এত মোটা?”

মানুষ অসম্পূর্ণ তথ্যের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নিতে সচেষ্ট হয়। সমস্যা হল যে আয়নায় আমরা যাকে দেখি সে আমার ভবিষ্যতের আমি। তাই ঠিক থাকলে নিজেকে মনে হয় আমি মোটা। 

৫. নিজেদের কিছু পরিবর্তন করতে চাই

আমরা নিজেদের সম্পর্কে কিছু পরিবর্তন করতে চাই কারণ আমরা আমাদের চেহারা পছন্দ করি না। আমরা আমাদের চেহারা নিয়ে সন্তুষ্ট নই এবং নিজেদের সম্পর্কে ভালো বোধ করতে চাই।

কেন আয়নায় আকর্ষণীয় কিন্তু ফটোতে নিজের চেহারা ভালো লাগেনা?

আপনি প্রতিদিন আয়নায় যে প্রতিফলন দেখেন সেটিকে আপনি আসল বলে মনে করেন। তাই , যখন আপনি নিজের একটি ফটো দেখেন, তখন আপনার মুখটি ভুল বলে মনে হয় কারণ এটি আপনি যেভাবে দেখতে অভ্যস্ত তার থেকে এটি বিপরীত। ঠিক এই কারণেই আপনি অনুভব করতে পারেন যে আপনি সবচেয়ে কম ফটোজেনিক ব্যক্তি, কারণ আপনার ছাড়া অন্য সবার মুখ আপনি প্রতিদিন একিরকম তাদের দেখেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here